ওয়েব হোস্টিং কি? শেয়ার্ড, ভিপিএস, ডেডিকেটেড এবং ম্যানেজড হোস্টিং কি?

ওয়েব হোস্টিং কি? শেয়ার্ড, ভিপিএস, ডেডিকেটেড এবং ম্যানেজড হোস্টিং কি?

এক কথায় বলতে গেলে ওয়েব হোস্টিং হচ্ছে একটি জায়গা যেখানে ওয়েবসাইট টি রাখা হয়। ধরুন , আপনি একজন ওয়েব ডেভেলপার । আপনি আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপ এ একটি ওয়েবসাইট তৈরি করলেন । এখন আপনার ওয়েবসাইট সকলের নিকট প্রদর্শন করানো দরকার , এখন তা কিভাবে সেইটা করবেন ?

য়েব হোস্টিং হচ্ছে এমন একটি সেবা যার মাধ্যমে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে তা WORLD WIDE প্রদর্শন করতে পারবেন । যখন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেন তখন সেই ওয়েবসাইটের কিছু ফাইল থাকে এবং ফাইলসমূহ ওয়েব সার্ভার এ আপলোড করতে হয় । অর্থাৎ, আপনার ওয়েবসাইটের সকল কন্টেন্ট ওয়েব হোস্টিং এ হোস্ট করা করা থাকে । ওয়েব সার্ভার হচ্ছে একটা কম্পিউটার এর মত । যেখানে আপনার ওয়েবসাইট এর কন্টেন্টসমূহ ২৪/৭ অনলাইন এ আপলোড থাকে । এতে, ভিজিটর যখন ইচ্ছে ওয়েবসাইট এ ভিজিট করতে পারে ।

যারা ওয়েব হোস্টিং সেবা প্রদান করেন তাদের বলা হয় হোস্টিং প্রভাইডার । যারা ওয়েব হোস্টিং নিতে চান তারা হোস্টিং প্রভাইডারের নিকট নির্দিষ্ট টাকার বিনিময়ে হোস্টিং নিয়ে থাকেন । এরপর, ওয়েব হোস্টিং প্রভাইডার গ্রাহককে একটি কন্ট্রোল প্যানেল দিয়ে থাকেন যার মাধ্যমে ওয়েবসাইট পরিচালনা করা হয় ।

বিভিন্ন ধরনের হোস্টিং:

শেয়ার্ড হোস্টিং (Shared Hosting)

শেয়ার্ড হোস্টিং সর্বাধিক জনপ্রিয় এবং প্রচলিত। আমরা যে হোস্টিং গুলো ব্যাবহার করছি বা সাধারনত হোস্টিং প্রোভাইডাররা যে হোস্টিং অফার করে থাকে তা সবই প্রায় শেয়ার্ড হোস্টিং। প্রফেশনাল বা কোন বড় সাইটের একটা স্বয়ংসম্পূর্ন সার্ভারের নির্দিষ্ট পরিমান সার্ভিস দরকার। এই সমস্ত সুবিধা নিজস্ব সার্ভারে নিয়ে আসতে গেলে বেশ ব্যায়বহুল হয়ে যায়। এদের জন্য শেয়ার্ড হোস্টিং উপযুক্ত। এই সার্ভারের নিরাপত্তা কম থাকে কারন এখানে একসাথে অনেক Client এর সাইট (১০ থেকে শুরু করে আরও বেশি) একসাথে থাকে।

ডেডিকেটেড হোস্টিং (Dedicated Hosting)

এই হোস্টিং এর জন্য ডেডিকেটেড সার্ভার প্রয়োজন। এটা অনেক ব্যায়বহুল। যদি আপনার ওয়েবসাইট অনেক অনেক বড় হয় এবং শক্ত নিরাপত্তা দরকার তখন এই হোস্টিং করা চলে। এখানে আপনি আপনার খরচ পরিমান হার্ডওয়্যার পাবেন। যত ব্যাস্ত সাইট হবে তত বেশি পাওয়ারফুল হার্ডওয়্যার লাগবে। এই হোস্টিং ২ প্রকার

ভিপিএস (VPS) হোস্টিং:

শেয়ার্ড আর ডেডিকেটেড হোস্টিং এর মাঝামাঝি হল ভিপিএস হোস্টিং। ডেডিকেটেড সার্ভারে সব হার্ডওয়্যার রিসোর্স একা আপনাকে দিয়ে দিবে এবং আপনার সাইট একটি সার্ভারে থাকবে। আর শেয়ারড হোস্টিং এ আপনার সাইটের সাথে থাকবে আরো হাজারটা সাইট। বিস্তারিত উপরেই আছে। ভিপিএস হোস্টিং এ সাধারনত একটা ডেডিকেটেড সার্ভার কয়েকজনকে ভাগ করে দেয়। যেমন ১৬ জিবি র‍্যামের একটা সার্ভার আপনাকে দিল ৪ জিবি এবং বাকিগুলি আরো ৩ জনকে দিল এভাবে সব রিসোর্স ভাগ/সীমাবদ্ধ করে দেয়। ডেডিকেটেড সার্ভারের মতই মোটামুটি নিজের মত যেকোন সফটওয়্যার ইনস্টল দেয়া যায়। সাধারনত তখন এরুপ হোস্টিং প্যাকেজ নিবেন যখন একটা ডেডিকেটেড সার্ভারের সব রিসোর্স আপনার লাগবেনা, তাহলে কাজও হল কিছু অর্থ সেভ হল।

ম্যানেজড হোস্টিং : হোস্টিং প্রোভাইডাররাই সব করে দেবে যেমন নিরাপত্তা, সার্ভার সেটাপ, নেটওয়ার্ক কনফিগার, কোন সফটওয়ার ইনস্টল দেয়া ইত্যাদি এজন্য তাদেরকে নির্দিষ্ট পরিমান টাকা দিতে হবে।

আন-ম্যানেজড হোস্টিং: আপনি যদি Server administrator হন অর্থ্যাৎ আপনি যদি নিজেই আপনার এই ওয়েব সার্ভারের সকল কাজ করে নিতে পারেন তাহলে এটা হবে Unmanaged Hosting. এতে আপনার অনেক অর্থ সেভ হবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে সার্ভার ম্যানেজ করা শিখে নিতে হবে ।

 

ওয়েবসাইটের স্পিড বৃদ্ধি এবং লোডিং সময় কমানোর কিছু টিপস !

ওয়েবসাইটের স্পিড বৃদ্ধি এবং লোডিং সময় কমানোর কিছু টিপস !

ওয়েবসাইটের বিভিন্ন সমস্যাগুলো মধ্যে ওয়েবসাইট স্লো কাজ করা এবং লোডিং স্পিড কম হওয়া অন্যতম। বিভিন্ন কারনে এই সমস্যা গুলো হতে পারে।

১. নিম্নমানের হোস্টিং ব্যবহার করা
২. ওয়েবসাইট ঠিক ভাবে কনফিগার না করা
৩. ইমেজ অপটিমাইজ না করা
৪. স্ক্রিপ্ট সমস্যা
৫. ভিডিও এমবেড করা
৬. অতিরিক্ত প্লাগিনস ব্যবহার করা

কয়েকটি পদ্ধতি অনুসরণ করলে ওয়েবসাইট আগের চেয়ে ফাস্ট করে নিতে পারেন।

১। হোস্টিং প্রোভাইডার নির্বাচন

যদিও আপনার ওয়েবপেজ লোডিং স্পিড বাড়াতে হোস্টিং খুব বেশি কিছু নয়, তারপরেও অনেক কিছুই। আপনি যদি নেক্সট লেভেল স্পিড চান, সেক্ষেত্রে অবশ্যই ক্লাউড হোস্টিং ব্যবহার করতে রেকমেন্ড করব।

পেজ কত দ্রুত লোড হবে সেটা নির্ভর করে আপনার পেজটি কত ভালো অপটিমাইজ করেছেন তার উপরে, কিন্তু আপনার সাইট কতদ্রুত পিং করা যাবে সেটা নির্ভর করে আপনার হোস্টিং প্রোভাইডারের ওপর।

সাইটের রেসপন্স টাইম নির্ভর করে ওয়েব সার্ভারের উপরে। এখন সকলের নিশ্চয় ক্লাউডে টাকা ইনভেস্ট করার মতো সামর্থ্য নেই, কেননা ক্লাউড মোটেও সস্তা নয়। শেয়ার্ড হোস্টিং ব্যবহার করেও ভালো পেজ স্পিড পাওয়া যেতে পারে। তবে ব্যাপারটি হচ্ছে অনেক শেয়ার্ড হোস্টিং কোম্পানি প্যাকেজ খরচ কমাতে একই সার্ভারে অনেক ওয়েবসাইট হোস্ট করে,
ফলে সার্ভার অনেক স্লো রেসপন্স প্রদান করে। আপনার হোস্টিং সার্ভার পারফরম্যান্স চেক করে নিন , যদি খারাপ পারফরম্যান্স হয় তাহলে সেইটা হোস্টিং প্রোভাইডার কে জানান।
হোস্টিং পারফরম্যান্স চেক : https://www.bitcatcha.com

২।  ওয়েবসাইট স্পিড অপটিমাইজেশন

ওয়েবপেজ স্পিড টেস্ট টুলগুলোতে কোনো ওয়েবসাইট স্পিড টেস্ট করার পর কিছু ওয়েবসাইট স্পিড অপটিমাইজেশন টিপস রেকমেন্ড করা হয়, যেগুলো বেশিরভাগই কনফিউজিং ব্যাপার, অনেক ব্যবহারকারীর কাছে। একটি পেজ ফাস্ট লোড হওয়ার পেছনে অনেকগুলো ব্যাপার কাজ করতে পারে, এর মধ্যে কোনো একটির ত্রূটি হলে পেজ স্লো লোড হতে পারে। প্রথমত, আপনার ওয়েব হোস্টিং প্রভাইডার ফ্যাক্ট করে, তারপরে আপনার ওয়েবপেজগুলো কতটা অপটিমাইজেশন করা হয়েছে সেটা ম্যাটার করে, এরপরে ক্লায়েন্ট ইন্টারনেট কানেকশন কতটা ফাস্ট সেটা নির্ভর করে, তারপরে ক্লায়েন্ট ডিভাইজটির স্পেসিফিকেশনও ম্যাটার করে। এদের মধ্যে কোনো একটিতে সমস্যা থাকলে ওয়েবপেজ লোড নিতে দেরি হবে।

৩। নিয়মিত সাইট স্পিড টেস্ট করুন

ফাস্ট সার্ভার আপনার সাইটটি দ্রুত কানেক্ট করতে সাহায্য করবে, কিন্তু পেজটি লোড নিতে কত সময় লাগতে পারে সেটা নির্ভর করবে আপনার ওয়েবপেজের ওপরে। একটি ফুল ফাংশনাল ওয়েবসাইট অত্যন্ত ফাস্ট তৈরি করা অনেক কষ্টসাধ্য ব্যাপার । একটি কমার্শিয়াল সাইটে অনেক অ্যাডস থাকে, বিভিন্ন সোশ্যাল প্লাগইন ইউজ করা হয়, বিভিন্ন উইজেট ব্যবহার করা হয়, যেগুলোকে বাদ দেওয়া যায় না, কিন্তু এগুলোই বেশিরভাগ স্পিড স্লো করে থাকে। ফাস্ট পেজের অনেক গুণ রয়েছে, মাথায় রাখতে হবে সকলেই হাই স্পিড ব্রডব্যান্ড ইউজ করে না, তাই স্লো ইন্টারনেট কানেকশনের যাতে আপনার সাইট ভালো পারফরম করে সেটা লক্ষণীয়। ইন্টারনেটে বর্তমানে অর্ধেকেরও বেশি ট্র্যাফিক মোবাইল ডিভাইজগুলো থেকে আসে (এই সংখ্যা আরো বাড়ছে), আর ফাস্ট পেজ লোডিং হলে মোবাইল ইউজারগুলোকে ধরে রাখতে পারবেন, না হলে পেজ লোডিং এর জ্বালায় অনেকেই সাইট ত্যাগ করতে বাধ্য হবে।

ওয়েবসাইট স্পিড টেস্ট করার জন্য আরো টুলস রয়েছে সেগুলো প্রত্যেকেই একে একে ইউজ করে দেখতে পারেন। যদিও একটি টুল থেকে অন্য আরেকটি টুলের রেজাল্ট আলাদা হতে পারে, কিন্তু আপনি মোটামুটি ভালো ধারণা অর্জন করতে পারবেন। পেজ স্পিড নামক গুগলের অফিশিয়াল টুলটি চেক করতে পারেন, যেখানে মোবাইল ও ডেক্সটপ থেকে আপনার সাইট কি রকম আচরণ করছে তা পরিমাপ করতে পারবেন।

৪। পেজ সাইজ কমাতে হবে

আপনার সাইট যদি টেক্সটনির্ভর হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে এইচটিএমএল সাইজ কমানোর কিছু নেই, তবে বিশেষ কমপ্রেশন ম্যাথড ইউজ করে এর সাইজ কিছুটা কমিয়ে ইউজার ব্রাউজারে ডেলিভারি করা যেতে পারে। সার্ভার থেকে HTTPS file মডিফাই করে gzip/deflate compression এনাবল করা যেতে পারে, যদি ওয়ার্ডপ্রেস ইউজ করেন সেক্ষেত্রে ক্যাশিং প্লাগিন থেকেও এই কমপ্রেশন এনাবল করা যায়।

অথবা অনেক হোস্টিং প্রভাইডার আগে থেকেই তাদের সার্ভারে এই কমপ্রেশন ম্যাথড এনাবল করে রাখে। ওয়েবপেজের ফাইল সংখ্যা কমাতে হবে, যত কম ফাইল তত কম DNS Lookup এবং ততদ্রুত ওয়েবপেজ! একটি ফুল ওয়েবসাইটে না চাইলেও অনেক ফিচার রাখতে হয়, বিশেষ করে অ্যাডস যেটা না থাকলে ওয়েবসাইটটি রান করে রাখা সম্ভব হবে না। তবে এ অ্যাডস এবং আলাদা মার্কেটিং প্লাগইনগুলো আলাদা আলাদা সার্ভার ব্যবহার করে ফলে ব্রাউজারকে আলাদা আলাদা রিকোয়েস্ট পাঠাতে হয়, এতে পেজ লোডিং টাইম বেড়ে যায়।

৫। ব্রাউজার ক্যাশ ব্যবহার করুন

আপনার ওয়েবসাইটটি যদি অত্যন্ত বেশি ডাইন্যামিক হয়ে থাকে, সেটা আলাদা ব্যাপার তারপরেও ব্রাউজার ক্যাশ টেকনিক ইউজ করতে হবে। যখন ব্রাউজার ক্যাশ সিস্টেম ইউজ করা হবে ব্রাউজার স্ট্যাটিক কন্টেন্টগুলো সার্ভারের কাছে বারবার রিকোয়েস্ট না করে লোকাল সিস্টেম থেকে লোড করবে।

এতে করে প্রথমত, সাইট যেমন ফাস্ট লোড নেবে; দ্বিতীয়ত সার্ভার ব্যান্ডউইথ বাঁচানো সম্ভব হবে। অনেক স্ট্যাটিক ফাইল, যেমন আপনার সাইটের লোগো, আইকন, সোশ্যাল মিডিয়া আইকন এগুলো প্রত্যেকটি পেজে একই থাকে, তাহলে বারবার কেন সার্ভার থেকে রিকোয়েস্ট করে লোড করা? —আপনি ওয়ার্ডপ্রেস ইউজ করলে জাস্ট ক্যাশিং প্লাগইন থেকে ব্রাউজার ক্যাশ ফিচারটি এনাবল করতে পারবেন। আলাদা CMS বা APACHE SERVER এর ক্ষেত্রে এইচটিএসিসিইএসএস ফাইল মডিফাই করেও BROWSER CACHE ON করা যায়, জাস্ট GOOGLE করে দেখে নিন।

৬। স্ক্রিপ্ট অপটিমাইজ করুন

আপনার পেজে যদি অনেক এক্সটারনাল স্ক্রিপ্ট থাকে, যেমন—নতুন প্লাগইন, উইজেট, গুগল ফন্ট, ট্র্যাকিং কোড, অ্যাডভার্টাইজমেন্ট ইত্যাদি এতে অবশ্যই আপানার পেজটি স্লো লোড হবে। অবশ্যই আপনার ADS ড্যাশবোর্ড চেক করুন, সেখানে দেখুন কোন অ্যাড ইউনিটে কেমন ক্লিক হচ্ছে।

যে ইউনিটগুলোটে একেবারেই ক্লিক আসে না, এক্ষুণি সেগুলোকে রিমুভ করে দিন, বিশ্বাস করুন কম অ্যাডস ইউনিট আপানার পেজ স্পিড অনেক বেশি বাড়িয়ে দিতে পারে।

 

আর্টিকেলটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ। নেবুলা আইহোস্ট এর সাথেই থাকুন।

 

 

Nebula ihost

নেবুলা আইহোস্ট থেকে ৭ জিবি ওয়েব হোস্টিং কিনলেই পাচ্ছেন ফ্রি .COM ডোমেইন ।

বৈশাখী ঝড়ো অফার !! সীমিত সময়ের জন্য !!

নেবুলা আইহোস্ট থেকে ৭ জিবি ওয়েব হোস্টিং কিনলেই পাচ্ছেন ফ্রি .COM ডোমেইন ।

৭ জিবি ওয়েব হোস্টিং এর রেগুলার মূল্য ১৬৫০ টাকা।
বর্তমান অফার মূল্য ১৪২৭ টাকা। দ্রুত লুফে নিন!

🧿সরাসরি অর্ডার লিংক 👉 https://bit.ly/2wH4EgT
Check Out এর সময় এপ্লাই করুন প্রমোকোড: Baisakhi-Offer

 𝗛𝗢𝗦𝗧𝗜𝗡𝗚 𝗙𝗘𝗔𝗧𝗨𝗥𝗘𝗦:
🔘 7 GB Pure SSD Storage
🔘 Unlimited Bandwidth
🔘 8 Addon Domain
🔘 10 Sub-Domains
🔘 20 Email Accounts
🔘 Free SSL Certificates
🔘 LiteSpeed Web Server
🔘 CloudLinux OS
🔘 Softaculous apps installer
🔘 Best Technical Support

 𝐃𝐎𝐌𝐀𝐈𝐍 𝗙𝗘𝗔𝗧𝗨𝗥𝗘𝗦:
🔘 Full Domain Control Panel
🔘 Instant Activation
🔘 DNS Management
🔘 Email Forwarding
🔘 URL Forwarding
🔘 +More

 যেকোনো সহযোগিতার জন্য আমাদের রয়েছে 24×7 কাস্টোমার সাপোর্ট :
Hotline : 01718 996269 অথবা 09678 981741

এক নজরে দেখে নিন আমাদের রিভিউ সমূহ: facebook.com/nebulaihost/reviews

📌 [বি:দ্রঃ অফার মূল্য শুধুমাত্র প্রথম বছরের জন্য। পরের বছর থেকে রিনিউয়াল এর জন্য ডোমেইন এবং হোস্টিং এর জন্য বাৎসরিক রেগুলার ফি প্রযোজ্য অর্থাৎ .COM ডোমেইন এর রিনিউয়াল ৯০০ টাকা এবং ৭ জিবি ওয়েব হোস্টিং এর রিনিউয়াল ১৬৫০ টাকা। সর্বমোট ২৫৫০ টাকা

ধন্যবাদ!

❗করোনা বিপর্যয় সময়ে নেবুলা আইহোস্ট দিচ্ছে ধামাকা অফার।

❗করোনা বিপর্যয় সময়ে নেবুলা আইহোস্ট দিচ্ছে ধামাকা অফার।

.COM ডোমেইন + ১০ জিবি ওয়েব হোস্টিং পাচ্ছেন মাত্র ১৭৯৯ টাকায়। সাথে থাকছে ফ্রী SSL সার্টিফিকেট।

 সরাসরি অর্ডার লিংক 👉 https://bit.ly/3bUWNet
🧿 Check Out এর সময় এপ্লাই করুন @STAYHOME প্রমোকোড।

 𝗛𝗢𝗦𝗧𝗜𝗡𝗚 𝗙𝗘𝗔𝗧𝗨𝗥𝗘𝗦:
🔘 10 GB SSD Storage
🔘 Unlimited Bandwidth
🔘 5 Addon Domain
🔘 15 Sub-Domains
🔘 25 Email Accounts
🔘 Free SSL Certificates
🔘 24/7 Support

 𝐃𝐎𝐌𝐀𝐈𝐍 𝗙𝗘𝗔𝗧𝗨𝗥𝗘𝗦:
🔘 Full Domain Control Panel
🔘 Instant Activation
🔘 DNS Management
🔘 Email Forwarding
🔘 URL Forwarding
🔘 +More

 বিস্তারিত জানতে আমাদের পেইজে 𝗜𝗻𝗯𝗼𝘅 করুন
অথবা কল করুন +88 01718 996269 নাম্বারে।

এক নজরে দেখে নিন আমাদের রিভিউ সমূহ: facebook.com/nebulaihost/reviews

📌 [বি:দ্রঃ অফারটি সীমিত সময়ের জন্য। অফার মূল্য শুধুমাত্র প্রথম বছরের জন্য। পরের বছর থেকে রিনিউয়াল এর জন্য বাৎসরিক রেগুলার ফি প্রযোজ্য]

ধন্যবাদ!

আপনি কি ওয়েবসাইট তৈরির কথা ভাবছেন?

আপনি কি ওয়েবসাইট তৈরির কথা ভাবছেন?

💠আপনি কি ওয়েবসাইট তৈরির কথা ভাবছেন
নেবুলা আইহোস্ট দিচ্ছে প্রফেশনাল মানের 𝗘-𝗰𝗼𝗺𝗺𝗲𝗿𝗰𝗲 অথবা 𝐍𝐞𝐰𝐬𝐩𝐚𝐩𝐞𝐫 ওয়েবসাইট মাত্র ৩২০০ টাকায়। সাথে পাচ্ছেন .Com ডোমেইন এবং ১০ জিবি ওয়েব হোস্টিং।

 সার্ভিসটির উল্লেখযোগ্য ফিচার সমূহ
“”””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””
🧿 প্রিমিয়াম ই-কমার্স /নিউজপেপার থিম।
🧿 একটি .Com ডোমেইন ।
🧿 ১০ জিবি PURE SSD হোস্টিং ।
🧿 ডোমেইন কন্ট্রোল প্যানেল।
🧿 সি-প্যানেল কন্ট্রোল প্যানেল।
🧿 ফ্রি SSL সার্টিফিকেট।
🧿 লাইটস্পীড সার্ভার।
🧿 এসইও ফ্রেন্ডলি ওয়েবসাইট ।
🧿 রেসপনসিভ ডিজাইন।
🧿 ২৪/৭ ঘন্টা অনলাইন সাপোর্ট।
🧿 + More

🕟 ডেলিভারি সময়: ১-৩ দিন।

ডেমোগুলো থেকে পছন্দ করুন।
 ই-কমার্স ডেমোঃ
“””””””””””””””””””””””””””””””””
🔸 https://bit.ly/2xLudO4
🔸 https://bit.ly/2R4pZI4
🔸 https://bit.ly/3dOeIVQ
🔸 https://bit.ly/2X4jzMI
🔸 https://bit.ly/2UExvf0
🔸 https://bit.ly/2X4jB7i
🔸 https://bit.ly/3aDtKvN
🔸 https://bit.ly/2wYXMLL
🔸 https://bit.ly/3dQS27l
🔸 https://bit.ly/3ayh8Gd

 নিউজপেপার ডেমোঃ
“”””””””””””””””””””””””””””””””””””””””
🔸 https://bit.ly/3dNjh2T
🔸 https://bit.ly/2XeGh59
🔸 https://bit.ly/39DbtNZ
🔸 https://bit.ly/2X1dvEH
🔸 https://bit.ly/2wWaQ4D
🔸 https://bit.ly/2xHlOuY
🔸 https://bit.ly/39A2QUk
🔸 https://bit.ly/3bIS6Eu
🔸 https://bit.ly/2R4qPVe
🔸 https://bit.ly/2UAGHRm

[বিঃদ্রঃ এখানে শুধু জনপ্রিয় ডেমোগুলো দেয়া হয়েছে । আমাদের আরও ডেমো রয়েছে। অন্যান্য আরও ডেমো দেখতে ইনবক্স করুন]

💠ওয়েবসাইট অর্ডার করতে মেসেজ করুন আমাদের পেইজে

অথবা ☎️ কল করুন +88 01718 996269 নাম্বারে।

ওয়েবসাইট 👉 www.nebulaihost.com

এক নজরে দেখে নিন আমাদের রিভিউ সমূহ: facebook.com/nebulaihost/reviews

ধন্যবাদ!